সম্রাটের প্রতি কবিতাগুচ্ছ -সপ্তর্ষি বিশ্বাস

সম্রাটের প্রতি কবিতাগুচ্ছ

সপ্তর্ষি বিশ্বাস

১. হাড়ের বাঁশরিখানি

অভিযান ব্যর্থ হলে ওষধি সৈকত জুড়ে কেবলি পালক –
বাঁশি নেই, বাঁশরিয়া নেই,
স্মৃতি বলতে ফিরে আসা ঢেউ ও ঝিনুকে
ফিরে যাওয়া সম্রাটের শান্ত পদছাপ –

হে সম্রাট, তোমার জাহাজ
ফুটো হলে ধাক্কা লেগে বরফ পাহাড়ে
জীবন বাঁচাতে তুমি স্খলিত সাঁতারে
কবে নিজে ভেসে আসবে এই আঘাটায়?

এই শেষ স্বপ্ন নিয়ে
হাড়ের বাঁশরিখানি
এতাবৎ দেহে ধরে আছি –

২. একা যাত্রী, খালাসি, কাপ্তেন –

যে জাহাজ কোনোদিনই ভিড়বেনা কোনোও বন্দরে
আমি তার একা যাত্রী, খালাসি, কাপ্তেন –

খাদ্য, পানীয় বলতে পিপে ভর্তি নোনাজল –
তিমি আর হাঙ্গরের হাড়,
মদ বলতে বালিকার খোয়া যাওয়া প্রিয় নাকছাবি,
মানচিত্রে ধূ ধূ মেঘ, কম্পাসের কাঁটা
বর্শাফলা’র মতো মৃত্যুমুখী, আর
চক্রবালে জলকন্যা, কাম, হাহাকার –
ফলতঃ জাহাজে আমি অর্বাচীন নোয়াহ্‌’র মতো
গড়িনি চিড়িয়াখানা, জাদুঘর অথবা সমিতি,
সমূহ বন্দরগুলি নোয়াহ্‌’র নামে লিখে দিয়ে
আমি আজ একা যাত্রী, খালাসি, কাপ্তেন –

৩. নিরক্ষর উৎসবের দিন …

হে সম্রাট, যেদিন স্বপ্নে আমি তোমার সমাধি
দেখেছি হিরণ্যগর্ভ জলের অতলে
সেই দিনই রত্নাকর থেকে প্রথম কবিতা লিখে
বাল্মীকির নামে আমি নিয়োজিত মহিমা কীর্তনে
হে সম্রাট, তোমার লেহ্য পেয় প্রতিটি নটীর …
তারা সব ক্ষয়ে গেছে নোনাজলে তবু
লাইটহাউসহেন তুমি এতাবৎ হিংস্র আর স্থির
অনেক জন্ম ধরে ভূত-প্রেত-দেবতা ও যক্ষ রূপ ধরে
আমার অক্ষরবৃত্তে কেন্দ্রহেন আসমুদ্র প্রতিষ্ঠা চেয়েছো –
তোমার কৃপার থেকে রক্ষা পেতে আমি
আমার ধ্বংসের দিকে যেতে যেতে থেমে
এখন স্বপ্নে দেখছি সাজাচ্ছ নিজের হাতে
গানে গল্পে হাড়ে গড়া আমার কফিন –
আমার অক্ষরগুলি পূর্বাপর অধিকারে নিয়ে
দিতে কী সক্ষম তুমি সত্তার পরাহত
সেইসব নিরক্ষর উৎসবের দিন? …

Leave a Reply

Close Menu